দুই ভাইয়ের বুকের মাঝে ছিল সন্তান

দুই ভাইয়ের বুকের মাঝে ছিল সন্তান Image

দুই ভাইয়ের বুকের মাঝে ছিল সন্তান

চকবাজারের পাঁচটি ভবনে ভয়াবহ আগুন লাগার ঘটনায় এ পর্য ন্ত ৭০ জনের বেশি লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। ফায়ার সার্ভি স জানিয়েছেন লাশের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে। বুধবার রাত ১০টা ১০ মিনিটে নন্দ কুমার দত্ত সড়কের শেষ মাথায় মসজিদের পাশে ৬৪ নম্বর হোল্ডিংয়ের ওয়াহিদ ম্যানসন থেকে  আগুনের সূত্রপাত হয়। পরে তা আশপাশের ভবনেও ছড়িয়ে পড়ে।

প্রাথমিকভাবে কয়েকজনের লাশ উদ্ধার হলেও আগুন নিয়ন্ত্রণে আসতেই উদ্ধার হতে লাগল  একের পর এক পুড়ে যাওয়া লাশ।

রাতেই ধ্বংসস্তুপ থেকে একে অপরকে জড়িয়ে থাকা দুইজনের লাশ উদ্ধার করেছে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের উদ্ধারকারী সদস্যরা। এ অবস্থায়ই একটি বডি ব্যাগে (মরদেহ যে সাদা ব্যাগে করে বহন করা হয়) করে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। হাসপাতালে পাঠানোর পর দেখা যায়, দুই ভাইয়ের মরদেহের মাঝে রয়েছে একটি শিশুর মরদেহ। পরে একই পরিবারের এই তিন সদস্যের মরদেহ শনাক্ত করেছেন ছোট ভাই ইদ্রিস।

আরো পড়ুন : কিভাবে আগুনের শুরু?

ইদ্রিস স্বজন হারানোর শোকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মর্গে  ঢুকরে কাঁদছিলেন । বলছিলেন, রাজধানীর পুরান ঢাকার চকবাজারে কাজ শেষে তারা তিন ভাই অপু, আলী ও ইদ্রিস দোকান বন্ধ করে বাসায় ফেরার প্রস্তুতি নিচ্ছিল। ইদ্রিসের এক বন্ধুর ফোন পেয়ে দোকানের চাবি বড় ভাইদের বুঝিয়ে দিয়ে বেরিয়ে যায়। পাশেই খেলা করছিল বড় ভাই অপুর (৩২) তিন বছরের ছেলে আরাফাত। এমন সময় ঘটে বিস্ফোরণ, ছড়িয়ে পড়ে আগুন। মারা যায় এই পরিবারের তিন সদস্য।

আগুনের হাত থেকে বাঁচানোর জন্যই হয়তো দুই ভাই আরফাতকে মাঝে রেখে একে অপরকে জড়িয়ে রেখেছিলেন বলে ধারণা করছেন ঢাকা মেডিকেলের চিকিৎসক ও উদ্ধারকারী ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা।

আরো পড়ুন : ‘আব্বা, এনামুল পুইড়া মইরা গেছে’